ঢাকা, শনিবার, ২ জুলাই ২০২২ | ১৭ আষাঢ় ১৪২৯ | ৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

ঘূর্ণিঝড় অশনির প্রভাবে ঢাকাসহ বিভন্ন স্থানে ঝড়বৃষ্টি

ঘূর্ণিঝড় অশনির প্রভাবে ঢাকাসহ বিভন্ন স্থানে ঝড়বৃষ্টি

ফাইল ছবি

ঘূর্ণিঝড় অশনির প্রভাবে ঢাকাসহ দেশের বিভন্ন স্থানে মধ্যরাত থেকে থেমে থেমে ঝড়বৃষ্টি হচ্ছে। কখনো মুষলধারে, কখনো মাঝারি আবার কখনো গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন। বিশেষ করে বিপাকে পড়েছেন নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া মানুষ। প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের হচ্ছেন না কেউ।

সমুদ্রে জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে ২-৩ ফুট উচ্চতায় প্রবাহিত হচ্ছে। দুর্যোগ মোকাবিলায় তৈরি রাখা হয়েছে সাইক্লোন সেন্টারগুলো। যদিও বাংলাদেশ অনেকটাই শঙ্কামুক্ত বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

ঘূর্ণিঝড় অশনির প্রভাবে উত্তাল বঙ্গোপসাগর। জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে ২-৩ ফুট উচ্চতায় প্রবাহিত হচ্ছে। সমুদ্রবন্দরগুলোকে ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে আবহাওয়া অফিস।

জানা গেছে, অনেক পর্যটক এরই মধ্যে কক্সবাজার ছাড়তে শুরু করেছেন। ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় জেলায় প্রস্তুত রাখা হয়েছে ৫৭৬টি আশ্রয়কেন্দ্র।

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ (সচিব) মোহাম্মদ ওমর ফারুক জানান, চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে অবস্থানরত ৭৩টি মাদার ভেসেলের মধ্যে ২৮টি থেকে পণ্য খালাস এখনো চলছে। পতেঙ্গা থেকে শুরু করে কর্ণফুলি নদীর মোহনা হয়ে বন্দর চ্যানেলে অবস্থানরত সব লাইটার জাহাজকে সদরঘাট ও শাহ আমানত ব্রিজ এলাকায় চলে যেতে বলা হয়েছে।

বৈরী আবহাওয়ার জন্য মোংলা বন্দরে পণ্য বোঝাই ও খালাস কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। বন্দর জেটিতে নোঙর করা শুরু হয়েছে নৌবাহিনী ও কোস্টগার্ডের জাহাজগুলো। বাগেরহাটের মোংলা উপজেলায় ১০৩টি সাইক্লোন সেন্টার প্রস্তুত রাখা হয়েছে। সুন্দরবন সংলগ্ন সাগর ও নদীতে মাছ ধরার ট্রলার ও নৌকা এরই মধ্যে তীরে ফিরে এসেছে।

এদিকে, ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সকাল থেকে বৃষ্টি হচ্ছে উপকূলীয় এলাকায়। এ কারণে ভোগান্তিতে পড়েছেন স্থানীয়রা। বেশির ভাগ শহরের রাস্তাঘাট অনেকটাই ফাঁকা। উপকূলবর্তী নদীগুলোতে জোয়ারের পানি বেড়েছে।

আবহাওয়া অফিস বলছে, পশ্চিম মধ্য বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত অশনি অগ্রসর হচ্ছে উত্তর-পশ্চিম দিকে। সন্ধ্যার পর গতিপথ পরিবর্তন করে দুর্বল হয়ে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। তবে বাংলাদেশ অনেকটাই শঙ্কামুক্ত।

এএইচ