ঢাকা, শনিবার, ২ জুলাই ২০২২ | ১৭ আষাঢ় ১৪২৯ | ৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

আত্মসমর্পণের পর কারাগারে ওসি প্রদীপের স্ত্রী

আত্মসমর্পণের পর কারাগারে ওসি প্রদীপের স্ত্রী

ছবিঃ সংগৃহীত

অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা সিনহা হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত কক্সবাজারের টেকনাফ থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশের স্ত্রী চুমকি কারণকে অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় আত্মসমর্পণের পর কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত। 

আজ সোমবার (২৩ মে) দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা মামলার পলাতক আসামি চুমকি কারণ চট্টগ্রাম বিভাগীয় বিশেষ জজ মুন্সী আবদুল মজিদের আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। আত্মসমর্পণের পর চুমকি কারণ আইনজীবীর মাধ্যমে আদালতে জামিনের আবেদন করেন। আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন।

দুদকের দায়ের করা অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় চুমকি কারণের সঙ্গে তার স্বামী প্রদীপও আসামি হিসেবে আছেন। এ মামলায় মোট ২৪ জন সাক্ষীর মধ্যে ইতোমধ্যে ২৩ জনের সাক্ষ্য সম্পন্ন হয়েছে। সোমবার ২৪ তম সাক্ষীর মাধ্যমে সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য এদিন প্রদীপকেও আদালতে হাজির করা হয়।

২০২১ সালের ১৫ ডিসেম্বর দুদকের মামলায় আসামি প্রদীপ ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন আদালত। চলতি বছরের ১৭ ফেব্রুয়ারি থেকে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়।


২০২০ সালের ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান। এ ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় ওই বছরের ৬ আগস্ট থেকে কারাগারে আছেন প্রদীপ। ওই মামলায় চলতি বছরের ৩১ জানুয়ারি দেয়া রায়ে প্রদীপকে মৃত্যুদণ্ড দেন আদালত।

এএইচ