ঢাকা, শুক্রবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ৭ আশ্বিন ১৪৩০ | ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৫

নোয়াখালীতে বিএনপির জনসমাবেশে সাংবাদিক লাঞ্ছিত

নোয়াখালীতে বিএনপির জনসমাবেশে সাংবাদিক লাঞ্ছিত

ছবি: গ্লোবাল টিভি

আবু রায়হান সরকার, নোয়াখালী: নোয়াখালী জেলায় বিএনপির জনসমাবেশ চলাকালে দলটির কয়েকজন নেতাকর্মী কর্মরত সংবাদকর্মীদের সঙ্গে অশোভন আচরণ ও শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। 

শনিবার বিকেলে জেলা শহর মাইজদী শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিপলকের সামনে অনুষ্ঠিত জনসভায় প্রধান অতিথি বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরীর বক্তব্য চলাকালে এ ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগী সংবাদকর্মীরা বলেন, জনসভার মঞ্চের সামনে সাংবাদিকদের জন্য জায়গা রাখলেও নেতাকর্মীদের কারণে সেখানে দাঁড়াতে পারেননি সংবাদকর্মীরা। প্রধান অতিথির বক্তব্য দেয়ার আগ মুহূর্তে সংবাদকর্মীদের সাথে ধাক্কাধাক্কি শুরু করে বিএনপির নেতাকর্মীরা। এসময় ছবি ও ভিডিও নিতে সমস্যা হওয়ায় নেতাকর্মীদের ক্যামেরা থেকে সরে দাঁড়ানোর অনুরোধ করলে তারা উপস্থিত সংবাদকর্মীদের ওপর ক্ষিপ্ত হয়। সংবাদকর্মীদের আওয়ামী লীগ সরকারের দালাল বলে তাদের দিকে তেড়ে আসে, শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত ও ক্যামেরা কেড়ে নেয়ার চেষ্টা করে। 

জানা গেছে, বিএনপির কেন্দ্রীয় মিডিয়া সেলের আয়াত উল্ল্যাহ খমিনি, কবিরহাট উপজেলা ছাত্রদলের সদস্য সচিব ইয়াছিন ফরহাদ ও ছাত্রদল কর্মী সুমন কর্তৃক উপস্থিত সংবাদকর্মীদের লাঞ্ছিত করার ছবি ভিডিও ভুক্তভোগী সংবাদকর্মীদের কাছে রয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুর রহমান বলেন, এমন ঘটনা কারো প্রত্যাশিত না। বিষয়টির জন্য আমরা লজ্জিত। জড়িতদের চিহিৃত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস-চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান বলেন, বিষয়টি নিয়ে ইতোমধ্যে আমরা জেলার নেতাদের সঙ্গে বসেছি। খারাপ আচরণ যারা করেছে তাদের তলব করা হয়েছে,এদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ্য, উচ্চ আদালতের নির্দেশনাকে অধীনস্থ আদালত ও সরকারের অবজ্ঞা, গায়েবি মামলায় নির্বিচারে গ্রেপ্তার, মিথ্যা মামলা, পুলিশি হয়রানি, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, বিদ্যুতের লোডশেডিং এবং আওয়ামী লীগের সর্বগ্রাসী দুর্নীতির প্রতিবাদসহ ১০ দফা দাবি বাস্তবায়নের দাবিতে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিফলকের সামনে বিএনপির জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা বিএনপির সভাপতি গোলাম হায়দার বিএসসির সভাপতিত্বে জনসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুর রহমানের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্যাহ বুলু, মো. শাহজাহান, বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য জয়নুল আবেদিন ফারুক, যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জালাল উদ্দিন মজুমদার।