ঢাকা, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪ | ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ | ৯ জ্বিলকদ ১৪৪৫

হাকিমপুর ভূমি অফিসে একই পদে দীর্ঘ বছর ৫ কর্মচারি

হাকিমপুর ভূমি অফিসে একই পদে দীর্ঘ বছর ৫ কর্মচারি

গ্লোবাল টিভি ছবি

মোঃ লুৎফর রহমান, হিলি (দিনাজপুর): হাকিমপুর উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি)-এর কার্যালয়ে ৬ বছর ধরে একই স্থানে কর্মরত রয়েছেন ৫ জন কর্মচারি। ভূমি অফিসের মিউটেশন কাম সার্টিফিকেট সহকারী ২ জন, নাজির কাম ক্যাশিয়ার ও জারিকারকসহ দীর্ঘদিন চাকরির সুবাদে নানান অনিয়মের ডালপালা মেলেছেন তারা। 

নিয়ম অনুযায়ী, কোন সরকারি কর্মচারি একই কর্মস্থলে তিন বছরের অধিক সময় থাকতে পারবেন না। সরকারের এমন নীতিমালা বাস্তবায়ন হচ্ছে না হাকিমপুর  উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) কর্যালয়ে।  

অনুসন্ধানে জানা যায়, হাকিমপুর (ভূমি) অফিসে ২০১৮ সালে হতে মিউটেশন কাম সার্টিফিকেট সহকারী পদে সোলায়মান আলী ও মোসাদ্দেক হোসেন কর্মরত আছেন। মোফাজ্জল হোসেন (জারিকারক),  সেকেন্দার আলী (জারিকারক), শহিদুল ইসলাম শাহীন  (চেইনম্যান) হিসাবে কর্মরত রয়েছেন।

অভিযোগ আছে, হাকিমপুর উপজেলা ভূমি অফিসে কর্মরত ব্যক্তিগণ সকল প্রকার নিয়ম-বিধি ভঙ্গ করে নিজস্ব নিয়মে ইচ্ছামত দাপ্তরিক কার্যক্রম পরিচালিত করছেন। দীর্ঘদিন একই উপজেলায় থাকায় অনেকেই আঙুল ফুলে কলাগাছে পরিণত হয়েছেন। এতে করে সাধারণ জনগণের ভোগান্তির শেষ নেই। 

হাকিমপুর উপজেলা ভূমি অফিসরে নাজির-কাম-ক্যাশিয়ার কর্মকর্তা মোঃ সোলায়মান আলী একই স্থানে দীর্ঘদিন থাকার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, একই স্থানে দীর্ঘদিন চাকরির সুবাদে কিছু অধিপত্য তৈরী হওয়াটাই স্বাভাবিক! তবে কর্তৃপক্ষ রাখলে আমাদের কিছু করার নেই।

হাকিমপুর উপজেলার চন্ডিপুর এলাকার মোসাদ্দেক হোসেন শিক্ষক অভিযোগ করে বলেন, কাগজপত্র সঠিক থাকার পরেও মোটা অংকের চাঁদা দাবি করেন উপজেলা ভূমি নাজির ক্যাম ক্যাশিয়ার সোলায়মান আলী, আমি অতিরিক্ত টাকা (ঘুষ) দিতে না পারায় আমার খারিজটি হয়নি। 

এ বিষয়ে হাকিমপুর উপজেলা কমিশনার (ভূমি) লায়লা ইয়াসমিন বলেন, ভূমি কর্মকর্তা ও কর্মচারিদের বদলির বিষয়টি জেলা প্রশাসকের হাতে। বিষয়টি জেলা প্রশাসক স্যারকে অবগত করা আছে। এ বিষয়ে যে কোন সিদ্ধান্ত ওনার বিষয়।