ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ | ১২ শা‘বান ১৪৪৫

বলিউড বাদশার আজ ৫৮তম জন্মদিন

বলিউড বাদশার আজ ৫৮তম জন্মদিন

ফাইল ছবি

বলিউড বাদশা শাহরুখ খানের আজ ৫৮তম জন্মদিন। ১৯৬৫ সালের ২ নভেম্বর দিল্লিতে জন্মগ্রহণ করেন কিং খান খ্যাত এই জনপ্রিয় বলিউড অভিনেতা। প্রতি বছরের মতো এবারও শাহরুখকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে তার বাসভবন মান্নাত- এর সামনে ভিড় করেন হাজারো ভক্ত। হাজার হাজার ভক্তের প্রত্যাশা পূরণ করলেন মধ্যরাতে বারান্দায় এসে দাঁড়িয়ে। 

শাহরুখ খানের মায়ের নাম লতিফ ফাতিমা খান, বাবা তাজ মোহাম্মদ খান ও বোন শেহনাজ লালারুখ খান। পুরো নাম শাহরুখ খান হলেও এই ভারতীয় অভিনেতা, প্রযোজক ও টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব এসআরকে নামেও পরিচিত। মিডিয়ায় তাকে বলা হয় বলিউড বাদশাহ্, বলিউড কিং বা কিং খান।

শাহরুখ খানের জন্মদিন বলে কথা। প্রতি বছর ২ নভেম্বর মানেই বলিউডে উৎসবের আমেজ। হাজার হাজার ভক্তের উল্লাসধ্বনি, রংবেরঙের ব্যানার, বেলুনে ছেয়ে যায় রাস্তাঘাট। আর ধীরে ধীরে জালে ঘেরা বারান্দায় এসে দাঁড়ান শাহরুখ খান। প্রথম কয়েক মুহূর্ত যেন নিশ্বাসবন্ধ হয়ে যাওয়ার জোগাড়। থেমে যায় সবকিছু। পিছনে বাজতে থাকে বেহালা। 

এবার বলিউড ‘বাদশা’র ৫৮তম জন্মদিনে তাঁর চেহারায় ছোট্ট কিছু পরিবর্তন। তাকে দেখা গেছে ডেনিম জিন্‌স, কালো রঙের টি-শার্ট, মাথায় কালো টুপি এবং চোখে চশমা। রেলিংয়ের ওপর উঠে ভক্তদের উদ্দেশে ছুড়ে দিলেন চুমু। তার পরেই তার সিগেনেচার পোজে ভক্তদের উদ্দেশে দুই হাত বাড়িয়ে দাঁড়িয়ে রইলেন কিছুক্ষণ। 

হাতজোড় করে ধন্যবাদও জানালেন সকলকে। প্রিয় নায়কের দেখা পেয়ে অনুরাগীদের উত্তেজনা এবং উচ্ছ্বাস বাঁধনছাড়া, ফুটল বাজিও। 'কিং অব রোমান্সে'র এক ঝলক দেখা পেতে সন্ধ্যা থেকেই অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করেছেন তারা।

এ বিষয়ে তিনি নিজের ভেরিফায়েড এক্স (আগের টুইটারে)-এ লেখেন, ‘এটা অবিশ্বাস্য যে আপনারা এত রাতেও আমাকে শুভেচ্ছা জানানোর জন্য মান্নাতের বাইরে জড়ো হয়েছেন। আমি একজন নিছক অভিনেতা। আপনাদের বিনোদন দিতে পারার থেকে বেশি আনন্দ জীবনে আমি আর কিছু থেকেই পাই না। আপনাদের ভালোবাসার স্বপ্নেই বেঁচে থাকি। আমাকে আপনাদের বিনোদিত করার সুযোগ দেয়ার জন্য ধন্যবাদ। কাল সকালে দেখা হচ্ছে- অন স্ক্রিনেও, অফ স্ক্রিনেও।’

শাহরুখের জন্মদিন উপলক্ষে আগামীকাল নেটফ্লিক্সে মুক্তি পাচ্ছে বছরের অন্যতম আলোচিত বলিউড সিনেমা 'জওয়ান'। ২০২৩ সাল দুর্দান্ত কাটছে শাহরুখ খানের। ৪ বছর পর বড়পর্দায় ফিরে একের পর এক রেকর্ড গড়ে যাচ্ছেন এই তারকা। এই বছর মুক্তি পেয়েছে তার দু'টি সিনেমা- পাঠান ও জওয়ান। বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বে সিনেমা দু'টি ১ হাজার কোটি রুপিরও বেশি ব্যবসা করেছে।


বলিউডে তার অভিষেক হয় ১৯৯২ সালে ‘দিওয়ানা’ সিনেমার মাধ্যমে। প্রথম সিনেমাতেই অর্জন করেন সেরা নবাগত অভিনেতা হিসেবে ফিল্মফেয়ার পুরস্কার। এ ছাড়া বলিউডে অনেক দর্শকপ্রিয় ছবি উপহার দিয়েছেন তিনি।

শাহরুখ খানের প্রধান চরিত্রে প্রথম কাজ ছিল লেখ ট্যান্ডনের টেলিভিশন ধারাবাহিক ‘দিল দরিয়া’। ১৯৮৮ সালে ধারাবাহিকটির শুটিং শুরু হয়, নির্মাণ-বিলম্বের কারণে ১৯৮৮ সালে রাজকুমার কাপুর পরিচালিত ‘ফৌজি’ টেলিভিশন ধারাবাহিকে অভিনেতা হিসেবে তিনি আত্মপ্রকাশ করেন।

কর্মজীবনের শুরুর দিকে খল চরিত্রে ‘ডর’, ‘বাজিগর’ ও ‘আনজাম’ সিনেমায় অভিনয় করে পরিচিতি লাভ করেন। এরপর তিনি বাণিজ্যিকভাবে অসংখ্য সফল চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন এবং খ্যাতি অর্জন করেন। এর মধ্যে রয়েছে ‘দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে জায়েঙ্গে’ (১৯৯৫), ‘দিল তো পাগল হ্যায়’ (১৯৯৭), ‘কুছ কুছ হোতা হ্যায়’ (১৯৯৮), ‘মোহাব্বতেন’ (২০০০) ও ‘কাভি খুশি কাভি গম’ (২০০১)।

দীর্ঘ ক্যারিয়ারে শাহরুখ খান ৩০টি ফিল্মফেয়ার পুরস্কারের মনোনয়ন থেকে ১৪টি পুরস্কার এবং একটি বিশেষ পুরস্কার অর্জন করেন। তিনি কোনও জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন না করলেও ২০০৫ সালে ভারত সরকার তাঁকে পদ্মশ্রী সম্মাননায় ভূষিত করে।